এফবিসিসিআই যেভাবে ব্যবসায়ীদের উপকার করছে

ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই) বাংলাদেশের বাণিজ্য ও শিল্পের প্রাইভেট সেক্টরের স্বার্থ রক্ষায় ব্যবসায়িক সম্প্রদায়ের শীর্ষ সংস্থা।ট্রেড সংগঠন অধ্যাদেশ ১৯৬১ এর অধীনে ১৯৭৩ সালে এফবিসিসিআই প্রতিষ্ঠিত হয়। এফবিসিসিআই সরকার ও স্বায়ত্তশাসিত সংস্থাগুলির মধ্যে বেসরকারি খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিত্ব করে।

এফবিসিসিআইয়ের ২০১৭-১৯ সালের পরিচালক নির্বাচন হয়েছে কিছুদিন আগে। প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত উন্নয়ন বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, যিনি সংস্থার সাবেক সভাপতি, আশা প্রকাশ করেন যে নতুন কমিটিতে যারা আসবেন তারা ব্যবসায়ীদের দাবি দাওয়াগুলো সরকারের কাছে নিয়ে যাবেন।

এফবিসিসিআই ৪৪ টি স্থায়ী কমিটি গঠন করেছে যারা বিশেষ বিষয় এবং বাণিজ্য ও শিল্পের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলা করার পরামর্শ ও সহায়তা দিয়ে থাকে।এফবিসিসিআই সারা দেশ জুড়ে এই সংগঠনের সদস্যদের ও বিভিন্ন বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর স্বার্থ রক্ষা করতে সহায়তা করে।এটি বাংলাদেশে বাণিজ্য, শিল্প, কৃষি, পর্যটন, মানব সম্পদ ও যোগাযোগ সেক্টরের বিনিয়োগ এবং উন্নয়নে সহায়তা করে। এটি সরকার, মন্ত্রণালয়ের পরামর্শমূলক কমিটি এবং অন্যান্য আন্তঃমন্ত্রণালয় সংস্থার সাথে পরামর্শ ও আন্তঃক্রিয়া প্রক্রিয়ায় কার্যকর অংশগ্রহণের মাধ্যমে প্রাইভেট সেক্টরের প্রতিষ্ঠানগুলোকে সুরক্ষা প্রদান করে থাকে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন অংশে বাণিজ্য ও শিল্প মেলা আয়োজনে চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি এর সংস্থাগুলোকে সহায়তা করে।বাণিজ্যিক, কারিগরি, শিল্প ও বৈজ্ঞানিক শিক্ষার উন্নয়নের জন্য বাণিজ্যিক, কারিগরি ও অর্থনৈতিক জ্ঞান বিস্তারের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে এফবিসিসিআই সচেষ্ঠ রয়েছে। বাণিজ্য ও শিল্প উন্নয়নের জন্য এফবিসিসিআই পরিসংখ্যানগত এবং অন্যান্য তথ্য সংগ্রহ ও বিতরণ করে।বাণিজ্য ও শিল্পের উপর প্রশিক্ষণ, সেমিনার এবং কর্মশালার আয়োজন করে সমঝোতা, আলোচনা এবং সালিসির মাধ্যমে বিভিন্ন বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে বিরোধ ও ভুল বোঝাবোঝি নিরসনে অগ্রনী ভূমিকা পালন করে। বাণিজ্যিক ও অর্থনৈতিক সহযোগিতার জন্য সমবায়ী সংস্থার মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন দেশে এবং বিভিন্ন দেশের মধ্যে শক্তিশালী দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদারে এফবিসিসিআই এর ভূমিকা অতুলনীয়। এটি বাংলাদেশে যৌথ উদ্যোগসহ বিদেশী সরাসরি বিনিয়োগ (এফডিআই )কে সহায়তা করে এবং যথাযথ সহযোগীদের চিহ্নিত করে।এটি বিদেশী জাতীয় চেম্বার অব কমার্স এবং অন্যান্য বাণিজ্যিক ও শিল্পকৌশল সংস্থাগুলির সাথে সম্পর্কিত অর্থনৈতিক সংস্থার সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রাখে।যা দেশের বাইরে বাংলাদেশের বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর বিনিয়োগের পথকে ত্বরান্বিত করছে। জাতীয় পর্যায়ে বাণিজ্যিক, শিল্প ও আর্থিক নীতি প্রণয়নে পরামর্শমূলক ও উপদেষ্টা ক্ষমতাতে এফবিসিসিআই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

জাতীয় অর্থনীতিকে প্রভাবিত করার এবং প্রভাবিত করার জন্য সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলির ওপর পারস্পরিক অংশীদারিত্বের জন্য সরকার ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন সংস্থার সকল ফোরামে এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।এটি বিদেশী জাতীয় চেম্বার অব কমার্স এবং অন্যান্য বাণিজ্য ও শিল্প সমিতিগুলির সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রাখে। এফবিসিসিআই ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স (আইসিসি), ইসলামিক চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (আইসিসিআই), এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের কনফারেন্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (সিএসিসিআই) এবং সার্ক চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (এসসিসিআই) এর সদস্য। । এফবিসিসিআই এই আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রক্ষার মাধ্যমে দেশের বাইরেও বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি করছে।অস্ট্রেলিয়া, বেলজিয়াম, মিশর, ফিনল্যান্ড, জার্মানি, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, ইতালি, জাপান, কোরিয়ান প্রজাতন্ত্র, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, মায়ানমার, নেপাল, পাকিস্তান জাতীয় বাণিজ্য সংস্থার সাথে এফবিসিসিআই যৌথ সহযোগিতার চুক্তির মাধ্যমেও বাংলাদেশের বেসরকারী বিনিয়োগের ক্ষেত্র তৈরী করে দিচ্ছে। পরিশেষে বলা যায় এফবিসিসিআই দেশ ও দেশের বাইরে বিনিয়োগ ও বাণিজ্য সম্প্রসারনে সদা সচেষ্ট রয়েছে।

Postedxxx in অর্থ-বাণিজ্য, নির্বাচিত

মন্তব্য করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবেনা। পুরন করা জরুরী *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

জরিপ

ব্যাংকিং খাতের অবস্থা কি ভালো বলে আপনি মনে করেন?

Loading ... Loading ...
ফেসবুক এ আমরা